English

ভোলার লালমোহনে গৃহবধুু দিপ্তি রানী সন্তানের বাবার অধিকার আদায়ের জন্য মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে !

২৫ জুলাই ২০১৭, ১৭:২০

মিজানুর রহমান, ভোলা ।

ভোলার লালমোহন উপজেলার বহুল আলোচিত দিপ্তী রানী দাস এখন নিজেকে বাদ দিয়ে সন্তানের বাবার অধিকার আদায়ের জন্য প্রায় ৩ মাস যাবৎ পথে পথে ঘুরে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছে। এ ব্যাপারে দেখার কেউ নেই। তিনি সাংবাদিকদের ক্যামারার সামনে জানান, আপনারা আবগত আছেন, গত দেড় বছর পূর্বে ভোলার লালমোহন পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডের কালিপদ দাসের ছেলে উজ্জল চন্দ্র দাসের সাথে আমার বিয়ে হয়। বিয়ের পর উজ্জল আমার সাথে দেড় বছর সংসার করে ঢাকার গাজীপুরে আমাকে একা ফেলে পালিয়ে যায়। ইতমধ্যে আমার গর্ভে উজ্জলের সন্তান জন্ম নেয়। যার বয়স বর্তমানে ৪ মাস। গর্ভের সন্তান নিয়ে আমি কোন উপায় অন্ত না পেয়ে গত ১৭ মে উজ্জলকে খোজার জন্য আমি লালমোহনে চলে আসি। সেখানে এসে আমি উজ্জলকে না পেয়ে, তার বাবা কালিপদ দাসকে বিষয়টি অবগত করি। এতে সে কোন প্রকার ব্যাবস্থা না নিলে আমি আমার সন্তানের অধিকার নিয়ে কালিপদ দাসের বসত ঘরে উঠার চেষ্টা করি। কিন্তু কালিপদ দাস তার পালিত লোকজন দিয়ে আমাকে ঘরে উঠতে বাঁধা প্রদান করে এবং আমাকে লাঞ্চিত করে। অন্য দিকে সে আমার নামে আদালতে একটি মিথ্যা মামলা দায়ের করে। এ মামলায় গত ১৯ জুন আমি আদালতে হাজির হলে আদালত ২৪ জুলাইর মধ্যে আমার স্বামী উজ্জল চন্দ্রকে আদালতে হাজির হতে নির্দেশ দেন। কিন্তু কালিপদ আদালতের নির্দেশ অমান্য করে এখন পর্যন্ত তার ছেলেকে অন্যত্র লুকিয়ে রেখেছে। সব মিলিয়ে গত ৩ মাস যাবৎ আমি গর্ভের সন্তানকে নিয়ে অসুস্থ্য অবস্থায় স্বামীর অধিকার ও সন্তানের বাবার অধিকার আদায়ের জন্য পথে পথে মানবেতর জীবন কাটাচ্ছি। বর্তমানে আমি আমার সন্তানের বাবার অধিকার নিশ্চিত করতে চাই। এ ব্যাপারে আপনাদের লিখনির মাধ্যমে আমি সার্বিক সহযোগীতা কামনা করি।

সর্বাধিক ক্লিক