• ২৫শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ , ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ঘূর্ণিঝড় মিধিলি: দেয়াল চাপা ও গাছ পড়ে ৭ জনের মৃত্যু

ডেস্ক রিপোর্ট
প্রকাশিত নভেম্বর ১৮, ২০২৩, ০৯:৪৭ পূর্বাহ্ণ
ঘূর্ণিঝড় মিধিলি: দেয়াল চাপা ও গাছ পড়ে ৭ জনের মৃত্যু

ঘূর্ণিঝড় মিধিলির প্রভাবে টানা বৃষ্টি এবং গাছ ও দেয়াল চাপায় এখন পর্যন্ত ৭ জন মারা যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। এর মধ্যে কক্সবাজারের টেকনাফে দেয়াল ধসে ৪ জন এবং চট্টগ্রামের সন্দ্বীপ, মিরসরাই ও টাঙ্গাইলে ঝড়ে গাছ পড়ে ৩ জন মারা গেছে।

 

উপকূলীয় জেলাসহ প্রায় সারা দেশেই দিনভর ছিল মাঝারি থেকে ভারি বৃষ্টি। বৃষ্টিতে সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন খেটে খাওয়া মানুষ। বিনষ্ট হয়েছে খেতের ফসল।

 

বৃহস্পতিবার রাত থেকেই দমকা হাওয়া ও বৃষ্টি শুরু হয় বাগেরহাটে। শুক্রবার সকালে তীব্রতা আরও বাড়ে। ঘূর্ণিঝড় মিধিলি উপকূল অতিক্রমের পর কমতে থাকে বৃষ্টি ও বাতাস। পটুয়াখালীতে বৃষ্টি ও ঝোড়ো বাতাসের তীব্রতা কমে আসে শুক্রবার দুপুরের দিকে। ঝড়ের কারণে অনেক জায়গায় ব্যাহত হয় বিদ্যুৎ সরবরাহ।

 

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে নোয়াখালীর বিভিন্ন স্থানে উপড়ে পড়ে গাছ। বৈদ্যুতিক তার ছিঁড়ে বন্ধ থাকে বিদ্যুৎ সরবরাহ। বন্ধ রাখা হয় হাতিয়ার সাথে সারাদেশের নৌ-যোগাযোগ।

 

পিরোজপুরের কঁচা, বলেশ্বর, কালিগঙ্গা নদীতে জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের তুলনায় কিছুটা বেশি ছিল। টানা বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত হয় জনজীবন। সবচেয়ে বেশি বিপাকে পড়েন খেটে খাওয়া মানুষ।

 

সাতক্ষীরায় জোয়ারের পানির উচ্চতা বাড়ায় আশাশুনির কুড়িকাহুনিয়া ও রুইয়ার বিলের বেড়িবাঁধে ফাটল দেখা দেয়।

 

সাতজনের মৃত্যু
বৃহস্পতিবার দিবাগত গভীররাতে কক্সবাজারের টেকনাফে ভারী বৃষ্টিতে বসতঘরের মাটির দেয়াল ধসে একই পরিবারের চারজন নিহত হয়েছেন। চট্টগ্রামের সন্দ্বীপে ঝড়ের সময় গাছের ডাল ভেঙে পড়ে মারা গেছেন একজন। মিরসরাইয়ে গাছের ডাল ভেঙে পড়ে মারা গেছে এক শিশু।

এদিকে শুক্রবার দুপুরে টাঙ্গাইলে ঝড়ে গাছের ডাল ভেঙে পড়ে এক কাপড় ব্যবসায়ী মারা গেছেন।